খবর

হাওড়ায় শিশুর মৃত দেহ পাওয়া গেলো জলের ট্যাংকে

শনিবার সকালে তল্লাশির পর তাদের বাড়ির জলের ট্যাংকের ভিতর শিশুটির লাশ পাওয়া যায়। শিশু হত্যার অপরাধী পুলিশ কাকি জেবিমা পারভীনকে গ্রেপ্তার করেন। পুলিশ জানতে পেরেছে সম্পত্তি নিয়ে ঝামেলার কারণেই, তার কাউকে শিশুটিকে ট্রাংকের মধ্যে ফেলে দেয়।

Howrah Child Murder

সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ লোভ এগুলি মানুষকে হিংস্র করে তোলে। মানুষ এতটাই লোভী হয়ে পড়ে যে একটা প্রাণ হত্যা করতেও তাদের বিবেক বাধা দেয় না। এমনই একটি হিংস্র ঘটনা ঘটেছে হাওড়ার টিকিয়াপাড়ায়। সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ ও হিংস্রতার কারণে একটি ছোট্ট শিশুর প্রাণ কেড়ে নিল তার ই কাকিমা। হিংস্রতা এতটাই চরমে নিষ্পাপ শিশুকে বিনা অপরাধে মরতে হলো।

সোমবার শ্যামা পারভীন হাসপাতালে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় এবং বৃহস্পতিবার হসপিটাল থেকে বাড়িতে আনা হয়। শ্যামা স্বামী একজন সবজি বিক্রেতা, তাই প্রতিদিনের মতো শুক্রবারে ও তিনি তার কাজে চলে যান। বাড়িতে ছিলেন তার সদ্যোজাতের সন্তান এবং তার স্ত্রী। শামা স্বামী চলে যাওয়ার পরে ঘটনাটি ঘটে, ঘুম থেকে উঠে শামা তার সন্তানকে পাশে দেখতে পায় না। অনেক খোঁজাখুঁজি চলে তা সত্ত্বেও পাওয়া গেল না সন্তানটিকে। এরপর তারা বাধ্য হয়ে থানায় অভিযোগ করেন।

সিসিটিভি ফুটেজ  পর্যবেক্ষণ করে দেখে। শনিবার সকালে তল্লাশির পর তাদের বাড়ির জলের ট্যাংকের ভিতর শিশুটির লাশ পাওয়া যায়। শিশু হত্যার অপরাধী পুলিশ কাকি জেবিমা পারভীনকে গ্রেপ্তার করেন। পুলিশ জানতে পেরেছে সম্পত্তি নিয়ে ঝামেলার কারণেই, তার কাউকে শিশুটিকে ট্রাংকের মধ্যে ফেলে দেয়।

বীভৎস এই ঘটনার সাক্ষী রইল পশ্চিমবঙ্গ । সত্যিই এই ধরনের ঘটনা আমরা মেনে নিতে পারি না। একটি ছোট্ট নবজাতক নিষ্পাপ শিশু যার কোন অপরাধী ছিল না, তাকে এইভাবে মেরে ফেলা হলো। হিংস্রতার চরম পর্যায়ে মানুষ কিনা করতে পারে আরো একবার সাক্ষী হয়ে থাকল পশ্চিমবঙ্গের মানুষ।

@newswap01

এই ধরনের আরো বিভিন্ন অজানা তথ্য এবং সতর্ক বার্তা সবার আগে পাওয়ার জন্য অবশ্যই আমাদের নিউজওয়াপ সাইটটিকে ফলো করবেন এবং নোটিফিকেশনটি অবশ্যই Allow করে দেবেন।

Related Articles

Back to top button