খবরখেলাধূলা

Commonwealth 2022: কঠিন লড়াই করে সোনা আনলো বাংলার ছেলে অচিন্ত্য শিউলি

Commonwealth 2022 : এ ভারতে সোনা এলো একজন বাঙালি ক্রিয়াবিদ অচিন্ত্য সিউড়ির হাত ধরে। কমনওয়েলথ গেমে 73 কেজি বিভাগে বাংলার ভর উত্তোলক অচিন্ত্য সিউড়ি সোনা জিতলেন। এটি আমাদের বাঙ্গালীদের কাছে অত্যন্ত গর্বের বিষয়। 313 kg ওয়েট তুলে রেকর্ড করলো ভারত

Achinta Sheuli Gold medal

2022 এ ভারতে সোনা এলো একজন বাঙালি ক্রিয়াবিদ অচিন্ত্য শিউলি হাত ধরে। রবিবার মাঝরাতে সংবাদ মাধ্যম থেকে জানা গিয়েছে বার্মিংহাম কমনওয়েলথ গেমে 73 কেজি বিভাগে বাংলার ভর উত্তোলক অচিন্ত্য শিউলি সোনা জিতলেন। এটি আমাদের বাঙ্গালীদের কাছে অত্যন্ত গর্বের বিষয়। মোট 313 kg ওয়েট তুলে রেকর্ড করলো ভারত ।

প্রথম প্রচেষ্টায় অচিন্ত্য স্নাচের 137 কেজি ভর উত্তোলন করেছিলেন। দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় 140 কেজি ভর তুলে কমেন্ট রেকর্ড এর নাম তুললেন। তৃতীয় প্রচেষ্টায় 143 কেজি বর তুলে সেরা রেকর্ড করলেন অচিন্ত্য। অচিন্তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন মালয়েশিয়ার এরি হৃদয়ত মোহাম্মদ। অচিন্ত্য সেখানে তার সঙ্গে ৫ কেজির ব্যবধানে ওয়েট তুলেছিলেন।

ক্লিন এন্ড জার্কের প্রথম প্রচেষ্টায় অচিন্ত্য 166 কেজি ভর উত্তোলন করেছিলেন। দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় তিনি 170 কেজি ভর উত্তোলনের চেষ্টা করেন কিন্তু সেখানে তিনি ব্যর্থ হন। আবার তৃতীয় প্রচেষ্টায় 170 কেজি ভর উত্তোলন করতে সক্ষম হয়। স্নাচ ও ক্লিন এন্ড জারক এই দুটি মিলিয়ে তিনি 313 কেজি ওয়েট তুলে রেকর্ড করলেন।

বাংলার কে কে স্বর্ণ পদক পেয়েছেন?

বাংলায় প্রথম কমনওয়েলথ গেমে স্বর্ণপদক জিতেছিলেন 1990 সালে কর্ণধর মন্ডল। মিডল ওয়েট স্ন্যাচ ইভেন্টে 135 কেজি ওয়েট তুলে রেকর্ড করেছিল। কমনওয়েলথ গেমে আরো যেসব ব্যাক্তি স্বর্ণপদক জিতেছিলেন, মোহাম্মদ আলী কামার, রাহুল বন্দ্যোপাধ্যায়, সুখেন দে।

@newswap01

অচিন্ত্য শিউলি অত্যন্ত মধ্যবিত্ত পরিবারের একজন সন্তান। পরিবারের খরচ চালানোর জন্য তার বাবা রিক্সা চালাতেন তবুও এই টাকায় তাদের তিন বেলায় খাবার জুটত না। অচিন্ত্য জানিয়েছে এই জায়গায় পৌঁছতে তাকে অনেক কঠিন পথ অতিক্রম করতে হয়েছে। অচিন্ত্য শিউলির বয়স যখন ৮ বছর তখন তার বাবা মারা যায় ফলে তাকেই সংসারের হাল ধরতে হয় । ছোটবেলাতেই তিনি সেলাইয়ের কাজটা শিখে নিয়েছিলেন। হাওড়ার একটি ছোট পরিবারে জন্ম অচিন্ত্যের। খুব ছোট বয়সেই তিনি জিমের সঙ্গে যোগ দেয়। অচিন্তে যে ঠাকুরদা ছিলেন তিনিও ছিলেন একজন ভর উত্তোলক কিন্তু পরিবারের চাপে তার স্বপ্ন নিয়ে তিনি এগোতে পারেননি। সব কিছুর মধ্যে অচিন্ত্য সেলাইয়ের কাজ ছাড়েনি। ছোটবেলায় একদিন ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে তার ঘুড়িটি ছিঁড়ে যায় এবং ঘুড়িটি এটি জিমের ছাদে গিয়ে পড়ে সেখানে অচিন্তা দেখতে পাই তার দাদুকে জিম করতে। এর পরই শুরু হয় তার ভর এর প্রতি ভালোবাসা যার ফলস্বরূপ আজ বাংলার চ্যাম্পিয়ন। অচিন্ত্যের হাত ধরেই বাংলায় তৃতীয় সোনা আসলো।

বাংলার অ্যাথলিট সোনা আনলেন অচিন্ত্য শিউলি। বাংলায় অচিন্ত্য শিউলি অনেকখানি মান উঁচুতে করলেন। আমরা বাঙালি আমরা গর্বিত।

এই ধরনের আরো বিভিন্ন অজানা তথ্য এবং সতর্ক বার্তা সবার আগে পাওয়ার জন্য অবশ্যই আমাদের নিউজওয়াপ সাইটটিকে ফলো করবেন এবং নোটিফিকেশনটি অবশ্যই Allow করে দেবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button